জবর দখল : গাজীপুরে আড়াই কোটি টাকার বনভূমিতে অবশেষে বনায়ন

আলোকিত প্রতিবেদক : গাজীপুরের বাউপাড়া বিটে জবর দখলকৃত আড়াই কোটি টাকা মূল্যের বনভূমিতে অবশেষে চারা রোপণ করা হয়েছে।

তবে ডিমারকেশন ব্যতীত নতুন নির্মিত বাউন্ডারি ওয়াল উচ্ছেদ না করায় বনজসম্পদ অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে।

দখল কাণ্ড নিয়ে গত ৪ জুলাই আলোকিত নিউজে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ার পর এ ব্যবস্থা নিল বন বিভাগ।

এর আগে গত ১ মে আলোকিত নিউজে প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে বন অধিদপ্তরের উপ-প্রধান বন সংরক্ষক (ডিসিসিএফ) ড. জগলুল হোসেন বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ অঞ্চলের বন সংরক্ষক (সিএফ) মিহির কুমার দোকে ১৫ দিনের মধ্যে তদন্তের নির্দেশ দেন।

পরে দুই মাস অতিবাহিত হলেও সংশ্লিষ্টরা কোন ব্যবস্থা না নিয়ে ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন।

অনুসন্ধানে প্রাপ্ত তথ্যমতে, জাতীয় উদ্যান রেঞ্জের বাউপাড়া বিটের গজারিয়াপাড়া এলাকার মিয়াবাড়ি রোডে কটেজ এন্ড পিকনিক স্পটের নামে সিএস ২২৬ নং দাগের ৪২ শতাংশ বনভূমি দখল করা হয়। স্পটটির চারদিকেও সংরক্ষিত বনভূমি।

দখলকারী ফখরুল ইসলাম বেশ কয়েক বছর আগে পশ্চিম পাশের প্রায় ২০০ ফুট ব্যতীত চারপাশে বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণ করেন। চলতি বছরের এপ্রিলের দ্বিতীয় সপ্তাহে অবশিষ্ট অংশে আরসিসি ওয়াল নির্মাণ করা হয়।

খবর পেয়ে গত ১৪ এপ্রিল বিট অফিসের লোকজন গিয়ে এর বেশির ভাগ অংশ ভেঙে দেন। এরপর কয়েক দিনের ব্যবধানে পুনরায় নির্বিঘ্নে আট ফুট উঁচু দেয়াল নির্মাণ করা হয়।

২০১৭ সালেও সেখানে দেয়াল নির্মাণের চেষ্টা চলছিল। তখন আলোকিত নিউজে প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে কাঁটাতারের বেড়া অপসারণ করে কাজ আটকে দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) শ্যামল কুমার ঘোষ আলোকিত নিউজকে জানান, ওই ৪২ শতাংশে গত সপ্তাহে জারুল, অর্জুন, হিজল ইত্যাদি গাছের ৪০০ চারা রোপণ করা হয়েছে। এ সময় ডিএফও কাজল তালুকদার উপস্থিত ছিলেন।

বাউন্ডারি ওয়াল না ভাঙা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মালিক ডিমারকেশনের জন্য জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে আবেদন করেছেন। সমাধান হলে ওয়াল ভেঙে দেওয়া হবে।

আরও পড়ুন : গাজীপুরের বাউপাড়া বিটে আড়াই কোটি টাকার বনভূমি দখল : কর্তৃপক্ষ নীরব

আরও খবর

Contact Us